চুলের যত্নে মেথি

চুলের যত্নে মেথি

মেথি মূলত একটি মৌসুমি গাছ। এর স্বাদ অনেকটা তেতো ধরনের। এটি রান্নার কাজে এবং চুলের যত্নে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। মেথিতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, প্রোটিন, আয়রন, পটাসিয়াম, লিকিথিন এবং নিকোটিনিক অ্যাসিড। মেথি ঔষধী গুণসম্পন্ন। কর্মব্যস্ত জীবনধারায় চুলের যত্নে মেথির ভূমিকা অনস্বীকার্য। আমরা  অনেকেই চুল পড়া নিয়ে কিংবা চুলের যত্ন নিয়ে চিন্তিত থাকি। কিন্তু এ থেকে উত্তরণের জন্য সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে অনীহা প্রকাশ করি! এমন সব অলস ব্যক্তিদের জন্য মেথি হতে পারে আদর্শস্বরূপ!

মেথি, টকদই ও নারিকেল তেল

চলুন জেনে নেওয়া যাক মেথির কিছু প্রয়োজনীয় হেয়ার প্যাকঃ

১. মেথি, টকদই ও নারিকেল তেলঃ প্রথমে একটি পাত্রে ২ চা চামচ পরিমাণ মেথি পরিমাণমতো পানি দিয়ে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ভিজিয়ে রাখা মেথি ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন এবার এতে এক কাপ পরিমাণ টকদই ভালোমতো মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। প্রথমে চুলের গোড়ায় এবং পুরো চুলে সুন্দর করে নারিকেল তেল মাসাজ করুন। এবার তৈরিকৃত প্যাকটি চুলে লাগিয়ে ৪০-৪৫ মিনিট পরে শ্যাম্পু করুন। এই প্যাকটি মাসে অন্তত দুইদিন ব্যবহার করলে চুল পড়া রোধ হবে, চুলের আগাফাটা সমস্যা দূরীভূত হবে, চুল হবে ঘন এবং স্বাস্থ্যোজ্জ্বল।

২. মেথি এবং নারিকেল তেলঃ চুলায় একটি পাত্র বসিয়ে তাতে ১ চা চামচ নারিকেল তেল নিন এবার ২ চা চামচ গুঁড়ো মেথি মেথি, টকদই তেলঃতাতে দিন। তেলের রং বাদামী হয়ে এলে চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন। তেল কুসুম গরম থাকা অবস্থায় রাতের বেলা পুরো স্ক্যাল্পে এবং চুলে লাগিয়ে ঘুমিয়ে পড়ুন। সকালে শ্যাম্পু করে নিন। এই হেয়ার মাস্কটি চুল পড়া বন্ধ করবে, খুশকি ও চুলকানির হাত থেকে চুলকে বাঁচাতে সাহায্য করবে এবং শুষ্ক চুলকে করবে কমনীয়।

৩. মেথি এবং কারিপাতাঃ সারারাত পানিতে মেথি ভিজিয়ে রাখুন। সকালে কয়েকটি কারিপাতা পানিতে সেদ্ধ করে নিন। এবার ভেজানো মেথি এবং সেদ্ধ করা কারিপাতা একসাথে ভালোমতো ব্লেন্ড করে ফেলুন। এই মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে ৩০ মিনিট পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে চুল পাকা কমে যাবে এবং চুল হয়ে উঠবে ঘন কালো এবং আকর্ষণীয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *