ত্বকের যত্নে লেবু

ত্বকের যত্নে লেবু

সেই সুপ্রাচীন কাল থেকে ত্বকের যত্নে লেবু ব্যবহৃত হয়ে আসছে। লেবু আকারে ছোট হলেও এর রয়েছে প্রচুর পুষ্টিগুণ। এতে রয়েছে এন্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি, ডি, পটাসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, প্রোটিন ও কার্বোহাইড্রেট। লেবু তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যা দূরকরণে বেশ ভালো ভূমিকা রাখে এছাড়াও ব্রণের সমস্যা দূরীভূত করে ত্বককে করে তোলে মসৃণ ও কমনীয়।

চলুন জেনে নেওয়া যাক ত্বকের যত্নে লেবুর ব্যবহারবিধিঃ

১. লেবুর রস এবং মধুঃ এক চা চামচ লেবুর রসের সাথে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এই প্যাকটি পুরো মুখে লাগিয়ে মিনিট ১৫ পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল নিঃসৃত করতে সাহায্য করবে যার ফলে ব্রণের সমস্যা দূরীভূত হবে।

লেবুর রস এবং মধুঃ

২. পাতিলেবু এবং কমলালেবুঃ এক চা চামচ পাতিলেবুর রসের সাথে এক চা চামচ পরিমাণ কমলালেবুর রস মিশিয়ে নিন। এবার এই মিশ্রণটি মুখে ও গলায় লাগিয়ে মিনিট ১৫ পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি সপ্তাহে অন্তত দুইদিন ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

৩. লেবুর রস ও দুধঃ ২ চা চামচ লেবুর রসের সাথে ২ চা চামচ দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এই প্যাকটি মুখে, গলায় ও হাতে লাগিয়ে ১০ মিনিট পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি ব্যবহার করলে ত্বকের রোদে পোড়া ভাব চলে যাবে।

৪. লেবুর রস এবং শসাঃ এক চা চামচ লেবুর রসের সাথে এক চা চামচ শসার রস মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এই প্যাকটি মুখে লাগিয়ে ৫ মিনিট পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত একদিন ব্যবহার করলে ত্বকের শুষ্কতা দূরীভূত হবে।

লেবুর রস

৫. লেবুর ব এবং চিনিঃ কয়েক ফোঁটা লেবুর রসের সাথে সামান্য পরিমাণ চিনি মিশিয়ে স্ক্রাব তৈরি করুন। রোজ গোসলে আগে এই স্ক্রাব আলতো করে ঠোঁটে মাসাজ করুন। তাহলে ঠোঁটের কালচে দাগ চলে যাবে এবং বিশেষ করে শীতকালে ঠোঁট ফাঁটা কমে যাবে।

এছাড়া শুধুমাত্র লেবুর টুকরো কনুই এবং হাঁটুতে ১০-১৫ মিনিট মতো ঘষলে ত্বকের খসখসে ভাব দূর হবে এবং কালো দাগও দূরীভূত হবে। সুতরাং লেবু এমন একটি ফল যা ভিটামিন এবং পুষ্টিগুণ দুয়ে সমৃদ্ধ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *